Miscellaneous News

ইতালিতে মেয়ে আ টকা, আ তঙ্কে বু ক ফাটছে বাবার

ইতালিতে মেয়ে আ টকা- পুরো বিশ্বে এখন করো’না ভা ইরাসে সবচেয়ে বেশি ক্ষ তিগ্রস্ত ইতালি। আয়তনে চীনের তুলনায় ছোট হলেও মৃ তের সংখ্যায় চীনকেও ছাড়িয়ে গেছে দেশটি। এমন পরিস্থিতিতে দেশটিতে আ টকে রয়েছেন মেয়েটি। মেয়ের জন্য দুশ্চিন্তা ও আ তঙ্কে বুক ফাটছে বাবার। ‘বড় অ’সহায় লাগছে।’ ফেসবুকে পোস্ট করে ডু করে ডু করে কাঁ’দছে বাবা। সেই সঙ্গে একজন সচেতন নাগরিকের পরিচয়ও দিয়েছেন তিনি।

তার সেই ফেসবুক পোস্ট থেকে জানা গেছে, গত বছরই রসায়নে পিএইচডি করতে ভারত থেকে ইতালি যান তার মেয়ে। কিন্তু গোটা বিশ্বে করোনা যে এভাবে প্রভাব বিস্তার করবে, তা কল্পনাও করতে পারেননি তিনি ও তার পরিবার। তবে মেয়ে সাহসী। তাই করো’না বিশ্বের দরবারে মাথাচা’ড়া দিলেও মেয়েকে তিনি বাড়ি ফেরানোর কথা মাথায় আনেননি।

মেয়েও ফেরার ইচ্ছা প্রকাশ করেননি। পরবর্তীতে যখন এই ম রণ ভা ইরাস ভ য়াবহ আকার ধারণ করে, তখন মেয়েকে বাড়ি ফেরানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বাবা। কিন্তু কিছু সমস্যার জন্য মেয়ের ফেরা হয়নি। তাছাড়া বাবা চাননি, এমন সং কটজনক মু’হূর্তে মেয়ে বিদেশ থেকে ফেরায় অন্য কারও স’মস্যা হোক।

এখন পর্যন্ত লকডাউনে আছে ইউরোপের দেশ ইতালি। ঘর থেকে বের হওয়া নি’ষেধ। তবে এসবের মধ্যে স্বস্তি একটাই। সরকার দেশের জনগণের প্রতি অত্যন্ত সচেতন ও দায়িত্বশীল। মানুষের দৈনন্দিন প্রয়োজনের যাবতীয় ওষুধ, খাদ্যসামগ্রী, পানীয়, পোশাক ইত্যাদি প্রত্যেকের ঘরে ঠিক মতো পৌঁছে দিচ্ছে। জনসাধারণের ঘর থেকে বেরনোর দরকারও হচ্ছে না। তার মেয়ের ঘরে এখনও দুই মাসের খাদ্য মজুত আছে।

শনিবার পর্যন্ত ভারতে করো’না ভাই রাসে আ ক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২৮৩ জনে পৌঁছেছে। এছাড়া এ ভা ইরাসে মা রা গেছেন অন্তত চারজন। মার্কিন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা স’তর্ক করে বলেছেন, ভারতে করো’না ভা ইরাসের সু’নামি বয়ে যেতে পারে। দেশটিতে অন্তত ৩০ কোটি মানুষ আ ক্রান্ত হতে পারেন বলে স’তর্ক করে দিয়েছেন তারা।

গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর দেশটির হুবেই প্রদেশের উহানে নতুন করো’না ভা ইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ে। এ ভা ইরাসে আ ক্রান্ত হয়ে দেশটিতে অন্তত ৩ হাজার ২৫৫ জনের প্রা’ণহা নি এবং আ ক্রান্ত হয়েছেন ৮১ হাজার ৮ জন। বিশ্বজুড়ে এ ভা ইরাসে আ ক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৮৩ হাজার ২৬৮ এবং মা রা গেছেন ১১ হাজার ৮২৯ জন। এছাড়া সুস্থ হয়েছেন ৯৩ হাজার ৫৩৫ জন।

ইতালির অবস্থায় গা শি উরে উঠবে যে কারো। করো’না ভা ইরাস সং’ ক্র’মণ যেন এই দেশটিকে এক মৃ ত্যুপু’রীতে পরিণত করেছে। যেখানে সেখানে মানুষ মা রা যাচ্ছে।

তারই একটি বাস্তব চিত্র ধরা পড়েছে রাজধানী রোমের রাস্তায়। সেখানে মুখে মাস্ক পরা এক ব্যক্তি অক’স্মাৎ রাস্তায় বিধ্ব ’স্ত হয়ে প’ড়ে গেলেন। তাকে ধ’রার মতো কেউ নেই। বেঁ’চে আছেন, না ম রে গেছেন কারো মালুম নেই। অবশেষে মেডি কেল বিভাগের স্টাফরা গিয়ে তাকে উ’দ্ধার করলেন। তাকে স্ট্রে’চারে তুলে একটি এম্বু’লেন্সের পি’ছনে নেয়া হলো।

তারপর তা ছুটলো হাস পাতালের উদ্দেশে। ওই ব্যক্তির ছবিসহ একটি সচিত্র প্রতিবেদনে এ কথা লিখেছে অনলাইন ডেইলি মেইল। এতে বলা হয়েছে গত ২৪ ঘন্টায় করো’না ভা ইরাসে আ’ ক্রা’ন্ত হয়ে মা রা গেছেন ৬৫১ জন। সব মিলে সেখানে মা’ রা গেছেন ৫৪৭৬ জন। সং’ ক্র’মিত হয়েছেন প্রায় ৬০ হাজার মানুষ।

সপ্তাহান্তে সেখানে মা’ রা গেছেন ১৪৪৪ জন মানুষ। এর ফলে প্রতি দুই মিনিটে একজন করে রো গী মা’ রা যাচ্ছেন করো’না ভা ইরাসে। করো’না ভা ইরাস সং’ ক্র’মণ ইতালিকে কিভাবে গ্রা’স করেছে তার চিত্র ফুটে উঠেছে রাস্তায় পড়ে থাকা ওই ব্যক্তির বি’ধ্ব ’স্ত দে হ।

এ দৃশ্য দেখে শি উরে উঠেছেন অনেকে। ফলে বিশেষ’জ্ঞরা স’ত’র্কতা দিয়েছেন। হুঁ’ শি’য়ারি দিয়েছেন তারা বৃটেনকে। বলেছেন, একই রকম দৃশ্য হতে পারে বৃটেনে দু’সপ্তাহের মধ্যে। এখন বৃটেনে মৃ তের সংখ্যা ২৩৩।

পক্ষকাল আগে ইতালিতে ঠিক এমন সংখ্যায় ছিল মৃ তের সংখ্যা। ইতালিতে মৃ ত্যুর মিছিল দীর্ঘ থেকে দীর্ঘ হওয়ায় সেখানে সহায়তার হাত বাড়িয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

তিনি ইতালির প্রধানমন্ত্রী গুসেপে কন্টেকে জানিয়ে দিয়েছেন তার সেনাবাহিনীর ভা ইরাস বিষয়ক ১০০ বিশেষজ্ঞ ও মেডি কেল স্টাফ নিয়ে সেনাবাবাহিনীর ৯টি বিমানের প্রথম স্কোয়াড্রন যাচ্ছে রোমে। পাশাপাশি কমিউনিস্ট কিউবা একইভাবে সেনাবাহিনীর চিকিৎ সকদের ৫২ ব্রিগেড ও নার্সদের পাঠিয়েছে রোমে।

পাঠকের মতামত:
Back to top button